নামায ভঙ্গের কারণ সমূহ

কি কি কাজ নামাযে করিলে নামায ভাঙ্গে যায়।।
নামায ভাঙ্গার ১৯ টি কারণ রয়েছে এই কাজ গুলো করলে নামায ভেঙ্গে যায়, তাই আমার নামাযের মধ্যে এই কাজ গুলো করা থেকে বিরত থাকবো। নামায ভঙ্গের কারণ সমূহ

নামায ভঙ্গের কারণ ১৯ টি
হলো–


১)– নামাযে অশুদ্ধ পড়া।
(নামাযের মধ্যে যদি কুরআন শরীফ পড়ার মধ্যে ভুল হলে এর অর্থ বেশকম হয়ে যাবে। এতে অনেক গুনা হবে।)

২)– নামাযের ভিতর কথা বলা।
(নামাযের ভিতরে কোনো রকম কথা বলা যাবেনা।)

৩)– কোনো লোকে সালাম দেওয়া।
(আপনার পশে দিয়ে একজন মানুষ যাচ্ছে আপনি তাকে নামাজে থাকা অবস্থায় কখনো সালাম দিতে পারবেন না)

৪)– সালামের উত্তর দেওয়া।
আপনার পাশে এসে যদি কেউ সালাম দেয় আপনি ওই সালামের উত্তর নিবেন না।)

৫)– উহঃ আহঃ শব্দ করা।
(নামাযের ভিতরে কোনো রকম আওয়াজ করা যাবেনা।)

৬)– বিনা উযরে কাশি দেওয়া।
(প্রয়োজন চারা অতিরিক্ত কাশি দেওয়া যাবেনা।)

৭)– আমলে কাছীর করা।

৮)– বিপদে কি বেদনায় শব্দ করিয়া কাঁদা
কোনো বিপদ হলে নামাযে শব্দ করে কাঁদা যাবেনা।

৯)– তিন তাসবীহ পরিমাণ সময় সতর খুলিয়া থাকা।
(তিনবার আল্লাহুআকবর বলতে যে সময় লাগে ওই সময় পরিমাণ যদি আপনার সতর খোলা থাকে তা হলে নামাজ ভেঙ্গে যাবে।)

১০)– মুক্তাদী ব্যতীত অপর ব্যক্তি লুকমা দেওয়া।
(নামাযে মুক্তাদি চারা অন্য কেউ লুকমা দিতে পারবেন না।)

১১)– সুসংবাদ ও দুঃসংবাদের উত্তর দেওয়া
(সুসংবাদের উত্তর আলহামদুলিল্লাহ বলা, ও দুঃসংবাদে ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজি উন বলা।)

১২)– নাপাক জায়গায় সিজদা করা।
(কোনো নাপাক জায়গায় সিজদা করা যাবেনা।)

১৩)– ক্বিবলার দিক হইতে সীনা ঘুরিয়া যাওয়া।
(ক্বিবালার দিক থেকে সীনা ঘুরিয়ে গেলে নামায ভেঙ্গে যাবে।)

১৪)– নামাযে কুরআন শরীফ দেখিয়ে পড়া। নামাযের মধ্যে কুরআন শরীফ দেখিয়ে পড়া যাবে না।)

১৫)– নামাযে শব্দ করিয়া হাঁসা।
নামাযের মধ্যে উচৃচ সরে হাঁসা যাবে না।

১৬)– নামাযে দুনিয়াবী কোনো কিছু প্রার্থনা করা।
(নামাযের মধ্যে দুনিয়াবী কোনো কিছু প্রর্থনা করা যাবে না।)

১৭)– হাঁচির উত্তর দেওয়া
(জওয়াবে ইয়ারহামুকাল্লাহ,,বলা।)

১৮)– নামাযে খাওয়া ও পান করা।
(নামাযের মধ্যে কোনো কিছু খাওয়া বা পান করা যাবে না।)

১৯)– ইমামের আগে মুক্তাদী খাড়া হওয়া।
(ইমাম হইতে মুক্তাদী আগাইয়া দাঁড়ানো।)

প্রসিদ্ধ এই ১৯টি ছাড়াও নামাজ ভঙ্গ হওয়ার আরো কারণ আছে। নামায ভঙ্গের কারণ সমূহ যেমন,—কোনো প্রাপ্তবয়স্ক নারী পাশে এসে নামাজে দাঁড়িয়ে যাওয়া, ইমামের আগে কোনো রোকন আদায় করে ফেলা, ইচ্ছাকৃত ওজু ভাঙার মতো কোনো কাজ করে ফেলা, পাগল, মাতাল কিংবা অচেতন হয়ে যাওয়া ইত্যাদি নামাজ ভঙ্গের কারণ।

নামায সম্পর্কে বিস্তারিত আরো আপডেট পেতে,আমার ওয়েবসাইট পহেলা ডট ইনফো এর সাথে থাকু।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *